আমরা     সংবাদ

শহর থেকে শহরে

বাইক থেকে বাইকে

সাবিনা ইয়াসমিন | ০৭ মার্চ ২০১৭, ০০:০১  

মায়া সনতাজ l ছবি: লেখকপোল্যান্ডের মেয়ে মায়া সনতাজ | বিজ্ঞাপনচিত্র তৈরি করেন, সঙ্গে বাইকও চালান। পৃথিবী চষে ফেলছেন একা একা। বাংলাদেশে এসে মোটর বাইক নিয়ে বেরিয়েছেন পুরো দেশ। তিনি এ পর্যন্ত ১০০টি দেশ ঘুরেছেন। বিভিন্ন দেশের সংস্কৃতি ও নারীর জীবন দেখতে সবচেয়ে বেশি আগ্রহী এই পোলিশ নারী পর্যটক। কোনো পরিকল্পনা ছাড়া হুট করে ঘর থেকে বের হয়ে ঘুরে বেড়ানো তাঁর শখ। আর ঘোরাঘুরি করার জন্য তাঁর প্রথম পছন্দ মোটরবাইক। বিভিন্ন দেশে গিয়ে সেখানে বাইক ভাড়া করে নানা অঞ্চল ঘুরে বেড়ান মায়া।
গত মাসের শেষ িদকে ঢাকার মানিক মিয়া অ্যাভিনিউয়ের সামনে কথা হলো। ছয় ফুট চার ইঞ্চি উচ্চতার এই নারীর সঙ্গে কথা বলতে হয় ঘাড় উঁচু করে। দুই সপ্তাহ ধরে বাংলাদেশের আনাচ-কানাচ ঘুরে দেখেছেন তিনি। কক্সবাজার তাঁর ভালো লেগেছে। তবে অতিরিক্ত ভিড় সেখানে। মায়া বলেন, ‘বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি ভালো লেগেছে জয়পুরহাট-নওগাঁ মহাসড়ক। সেখানে অবাধ সবুজের মাঝ দিয়ে বাইক চালানো আমার কাছে অলীক সুখের মতো, যা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না।’
বাংলাদেশের খাবারের মধ্যে মায়া প্রায় প্রতিদিন খেয়েছেন ‘চিকেন বিরিয়ানি’। সুস্বাদু এই খাবার তিনি আগে কখনো খাননি। বাংলাদেশের স্ট্রিট ফুড তাঁর খুব ভালো লেগেছে। তাঁর বন্ধু ইশরাত তাঁকে ঢাকা শহরের সব জায়গায় ঘুরিয়েছেন।
কক্সবাজার থেকে ঢাকায়। আবার উত্তরের জয়পুরহাট তারপর নওগাঁ, রাজশাহী, নাটোর বনপাড়া হয়ে আবার ঢাকায়। তারপর ২৮ ফেব্রুয়ারি চলে গেছেন ভারতে। সেখানে ঘুরে বেড়াবেন তিন মাস। এরপর কোরিয়ায় যাবেন।
মায়া প্রথম আলোকে বলেন, ‘প্রথমে জাপানে ঘুরতে যাই। জাপানে ৮০ বছরের বৃদ্ধাকে সাঁতার কাটতে দেখে মনে হয়েছে, যদি সে এই বয়সে সাঁতার কাটতে পারে, তাহলে আমি কেন পুরো পৃথিবী ঘুরে দেখতে পারব না। নারীদের ব্যতিক্রম কিছু করা দেখে উৎসাহী হলাম।’
মায়া বাংলাদেশের উইমেন্স রাইডার ক্লাবের প্রধান ইশরাত খান মজলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে ঘুরেছেন শহরে। বাংলাদেশে আসার আগেই নারীদের মোটরবাইক গ্রুপে যোগ দিয়েছেন তিনি। বাংলাদেশে মেয়েরাও এই শহরে মোটরবাইকে করে ঘুরতে বের হয়—ব্যাপারটা তাঁকে বেশ নাড়া দিয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য (০)

মন্তব্য করতে লগইন করুন