বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি     সংবাদ

ট্যাটুও ডিজিটাল!

শাওন খান | ২০ মার্চ ২০১৭, ০০:৪৬  

ঐতিহ্যের পরম্পরায় সেই আদিকাল থেকেই মানুষ বিভিন্ন নকশা ধারণ করে এসেছে নিজের শরীরে। সেই নকশা যুগের পর যুগ ধরে পরিবর্তনের মাধ্যমে পরিণত হয়েছে শখের ট্যাটুতে। রং পাল্টেছে, নকশা পাল্টেছে। ধরন পাল্টে হয়েছে ত্রিমাতৃক। তবে প্রযুক্তির যুগে সবকিছু একটু দ্রুত পুরোনো হয়ে যায়। ট্যাটুও এখন পেয়েছে ডিজিটাল রূপ।
‘স্কিনমার্ক’ নামের ডিজিটাল ট্যাটুগুলো দেখতে অনেকটাই বৈদ্যুতিক বর্তনীর মতো। স্কিনমার্ক শুধু দেখতেই ডিজিটাল নয়, কাজেও ডিজিটাল। নতুন এ ধরনের ট্যাটুগুলো স্মার্টফোন নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। গুগলের সহায়তায় জার্মানির সারল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক নতুন এই বৈদ্যুতিক ট্যাটু উদ্ভাবন করেন। দলটির প্রধান মার্টিন ওয়াইগাল বলেন, বিশেষ ধরনের বিদ্যুৎ পরিবাহী কালি দিয়ে অস্থায়ী এই ট্যাটুতে তার এবং ইলেকট্রোড আঁকা হয়। এই ট্যাটুগুলো মানুষের চুলের চেয়েও বেশি পাতলা। ট্যাটুগুলো মানুষের শরীরে থাকা ইলেকট্রনকে সক্রিয় করে তোলে এবং এর মাধ্যমে ট্যাটুগুলোও সক্রিয় থাকে বলে জানিয়েছে গবেষক দলটি। এ ছাড়া ট্যাটুগুলোর সংকেত স্মার্টফোনে পাঠানোর জন্য একটি ছোট্ট নিয়ন্ত্রকও রয়েছে, যা অনেকটাই রিস্টব্যান্ডের মতো।
স্কিনমার্ক ট্যাটু দিয়ে স্মার্টফোন নিয়ন্ত্রণ করা যায়। যেমন আঙুলে থাকা ট্যাটুটিতে সামনে-পেছনে ঘর্ষণ করে ফোনের শব্দ বদলানো যাবে। আবার একই আঙুলকে বাঁকালে ট্যাটুটি ভলিউমের পরিবর্তে গান চালু করা বা বন্ধ করার কাজ করবে। এ ছাড়া তড়িৎ-আলোক পরিবাহী আরেক ধরনের ট্যাটু রয়েছে যেগুলোর আকৃতি প্রচলিত বিভিন্ন স্মার্টফোন অ্যাপের আইকনের মতো। ওই অ্যাপটিতে কোনো বার্তা এলে আলোক ট্যাটুগুলো জ্বলে উঠবে। এ ছাড়া রয়েছে হৃদয় আকৃতির ট্যাটু। প্রিয় কোনো ব্যক্তির ফোন নম্বরের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া যাবে। নির্দিষ্ট ব্যক্তিটি কল করলেই ট্যাটুটি জ্বলে উঠবে এবং সেই ট্যাটু স্পর্শ করলেই কলটি গ্রহণ করা যাবে, প্রয়োজনে কল করাও যাবে।
প্রযুক্তির এই নতুন আবিষ্কার অবশ্য এখনো পরীক্ষাগারের বাইরে আসেনি। গবেষক দলটি জানিয়েছে, প্রোগ্রামার কিংবা ট্যাটু শিল্পীদের জন্য সহজলভ্য করে শিগগিরই স্কিনমার্ক ট্যাটু বাজারে আসবে। তবে সেটা কবে নাগাদ তা নিয়ে রসিকতা করেই দলটি বলেন, হয়তোবা আইফোন ২২-এর সঙ্গে স্কিনমার্ক ট্যাটুটি ভালোই মানাবে। সূত্র: নিউ সায়েন্টিস্ট

পাঠকের মন্তব্য (০)

মন্তব্য করতে লগইন করুন