ক্রিকেটের লাইভ স্কোর

    খেলা     সংবাদ

রাঁচি টেস্ট

স্কোরকার্ড বলবে না রাঁচির রোমাঞ্চ

২১ মার্চ ২০১৭, ০১:৩৫  

পাঁচ দিনে দুই দলের তিন ইনিংসও শেষ হয়নি। ম্যাচটি না দেখে থাকলে যে কেউই হয়তো বলে দেবেন ম্যাড়মেড়ে ড্র। এটা ঠিক, বোর্ডার-গাভাস্কার ট্রফির আগের দুটি ম্যাচে যে রোমাঞ্চ ছিল, রাঁচিতে তৃতীয় টেস্টে তেমনটা দেখা যায়নি। তবে ম্যাচটিকে ঠিক ম্যাড়মেড়েও বলা যাচ্ছে না।
একটা সময় তো জয়ের সুবাসও পাচ্ছিল ভারত। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা হারিয়ে গেল পিটার হ্যান্ডসকম্ব ও শন মার্শের জন্য। ১৫২ রানের লিড নিয়ে আগের দিন ইনিংস ঘোষণা করেছিল স্বাগতিক দল। শেষ বিকেলে ব্যাটিংয়ে নেমে দুটি উইকেটও হারিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। কাল লাঞ্চের আগে হারায় ম্যাট রেনশ আর অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথকেও। স্মিথের আউটটি সবাইকে যেন মনে করিয়ে দিয়েছে ক্রিকেটে আমদানি হওয়া নতুন শব্দ ‘ব্রেন ফেড’কে। বাঁহাতি স্পিনার রবীন্দ্র জাদেজার বলটা লেগ স্টাম্পে পড়েছিল। কিন্তু সেটা দেখেও ব্যাট তুলে পা দিয়ে বল আটকানোর চেষ্টা করেছেন স্মিথ। পা-টাও খুব বেশি বাড়াননি, ফলে লাইন মিস করে বোল্ড! রাঁচির গ্যালারিতে তখন স্বাগতিক দর্শকেরা উৎসবের আয়োজন সাজানোর প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন।
এরপরই মার্শ-হ্যান্ডসকম্বের ওই জুটি। উইকেটের একপাশে ধুলো উড়িয়ে টানা বল করে যাচ্ছেন জাদেজা, অন্যদিকে অশ্বিন ভয় ধরাচ্ছিলেন প্রায় প্রতি ওভারে। উমেশ যাদব কিংবা ইশান্ত শর্মাও আগুন ঝরিয়েছেন। ফণা তুলেছে রিভার্স সুইং। কিন্তু ধৈর্যের পরীক্ষায় পূর্ণ নম্বরই পেয়েছেন হ্যান্ডসকম্ব ও মার্শ। প্রথমে শুধু টিকে থাকায় মন দিয়েছেন, পড়ে থিতু হয়ে পাল্টা আক্রমণও করেছেন। ৬২.১ ওভারের জুটিটা যখন জাদেজার বলে থামল, ততক্ষণে ম্যাচ প্রায় বাঁচিয়েই ফেলেছে অস্ট্রেলিয়া। দিনের খেলার ৪০ মিনিট বাকি থাকতে ১৯৭ বলে ৫৩ রান করে আউট হয়েছেন মার্শ।
ম্যাচ জেতার আশা তখনো ছাড়েনি ভারত। কিন্তু মাত্র ৭ টেস্টের অভিজ্ঞতাকেই পুঁজি করা হ্যান্ডসকম্ব লড়াইটা চালিয়ে গেলেন। গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে ২ রানে ফেরানোর পরও তাই ১৫ মিনিট আগেই ড্র মেনে নিয়েছে ভারত। অস্ট্রেলিয়ার স্কোর তখন ৬ উইকেটে ২০৪ রান। আর ক্যারিয়ার-সেরা ইনিংস খেলে অপরাজিত হ্যান্ডসকম্ব। প্রায় সোয়া চার ঘণ্টা ব্যাটিং করে ৭টি চারে ৭২ রান করেছেন ২০০ বলে।
ভারত-অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজের সব রোমাঞ্চ এখন জমা হয়ে রইল আগামী শনিবার শুরু হতে যাওয়া ধর্মশালা টেস্টের জন্য। তিন ম্যাচ শেষে সিরিজে ১-১ সমতা। চতুর্থ ও শেষ টেস্টটি তাই হয়ে গেল অঘোষিত ‘ফাইনাল’। স্টার স্পোর্টস।

পাঠকের মন্তব্য (১)

  • hidden

    অসাধারণ সিরিজ। সবচেয়ে শক্তিশালী দুই দলের মধ্যে যে লড়াই যা শুধু ক্রিকেটের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। তবে টেস্টের মজা ১৬ আনাই দিয়ে যাচ্ছে। অস্ট্রেলিয়া এই বিরুদ্ধ পরিবেশে যা খেলছে তাতে মুগ্ধ।
     
মন্তব্য করতে লগইন করুন