বাংলাদেশ     সংবাদ

শিশুকে সেতুর ওপর থেকে ছুড়ে ফেলে স্ত্রীকে চুবিয়ে হত্যা!

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ২১:৫৯

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলায় দুই মাস বয়সী সন্তানসহ স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়া নজরুল ইসলাম আজ শুক্রবার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। মামলাটির তদন্তকারী ও আহুতিয়া তদন্ত কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) মতিউর রহমান এ কথা জানান।

নজরুল ইসলামের (২৫) বাড়ি পাবদা গ্রামে। কিশোরগঞ্জ আদালতের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মোহাম্মদ জগলুল হকের খাসকামরায় ১৬৪ ধারায় তাঁর জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।

জবানবন্দিতে নজরুল ইসলাম বলেন, গত ১৩ জানুয়ারি সকালে স্ত্রী রহিমা আক্তার (২৮) ও ছেলে আমিরুল ইসলামকে বেড়ানোর কথা বলে তিনি বাড়ি থেকে বের করেন। সন্ধ্যার পর এগারসিন্দুর ইউনিয়নের মিরারটেক বিলের পাশের সেতুতে তাঁদের নিয়ে যান। তিনি প্রথমে সেতুর ওপর থেকে ছেলে আমিরুলকে বিলের পানিতে ছুড়ে মারেন। এরপর স্ত্রী রহিমাকে টেনেহিঁচড়ে বিলে এনে পানিতে ডুবিয়ে হত্যা করে কচুরিপানা দিয়ে লাশ দুটি ঢেকে পালিয়ে যান।

থানা-পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দা সূত্র জানায়, রহিমা আক্তার বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী। কয়েক মাস আগে নজরুল ইসলামের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে উঠলে তিনি অন্তঃসত্ত্বা হন। এ পরিস্থিতিতে রহিমার পরিবার নজরুলকে বিয়ের জন্য চাপ দেয়। এ নিয়ে গ্রামে সালিস বৈঠকও হয়। মাস দু-এক আগে রহিমা ছেলেসন্তানের জন্ম দেন। ১০ জানুয়ারি স্থানীয় মাতবরদের চাপে রহিমাকে বিয়ে করতে বাধ্য হন নজরুল। ১৩ জানুয়ারি নজরুল সন্তানসহ রহিমাকে বেড়াতে নিয়ে যান। এরপর তাঁরা নিখোঁজ ছিলেন। ২১ জানুয়ারি মিরারটেক বিল থেকে পুলিশ রহিমার গলিত লাশ উদ্ধার করে। একই জায়গা থেকে ৩১ জানুয়ারি আমিরুলেরও গলিত লাশ উদ্ধার করা হয়। ঘটনার পর থেকে নজরুল মা-বাবাসহ পলাতক ছিলেন। এ ঘটনায় রহিমার বড় ভাই আবদুল আওয়াল ২২ জানুয়ারি নজরুল, তাঁর ভাই দ্বীন ইসলাম, বাবা সোহরাব উদ্দিন ও মা মদিনা খাতুনের বিরুদ্ধে পাকুন্দিয়া থানায় হত্যা মামলা করেন। এ ঘটনায় দ্বীন ইসলামকে আগেই গ্রেপ্তার করে পুলিশ। বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে ফেনীর দাগনভূঞা এলাকার এক স্বজনের বাড়ি থেকে নজরুল, সোহরাব উদ্দিন ও মদিনা খাতুনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এসআই মতিউর রহমান বলেন, নজরুলের জবানবন্দি শেষে আসামিদের কিশোরগঞ্জ কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য (০)

মন্তব্য করতে লগইন করুন